terrorist Roni

ক্রাইম নিউজ: নোয়াখালী জেলাধীন সোনাইমুড়ি উপজেলার অর্ন্তগত আমিশাপাড়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়াড পাটওয়ারী বাড়ির মৃত আবুল হোসেনের ছেলে বর্তমানে শীর্ষ সন্ত্রাসী ও মাদক কারবারী হিসেবে সুপরিচিত। এই সন্ত্রাসীর নেতৃত্বে রয়েছে কয়েক ডজন মাদক ব্যবসায়ী। সন্ত্রাসী রনি এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। বর্তমানে বেশ কয়েকটি মামলার আসামী এবং কিছুদিন আগে সোনাপুর এক প্রবাসী থেকে চাঁদা আদায় করতে না পেরে অপহরণ ও প্রাণনাশের চেষ্টা চালায় এবং মারাত্নক আহত করে। পরবর্তীতে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় ছেলেটি প্রাণে বেঁচে যায়। এই ঘটনার একটি মামলা হয় এবং সন্ত্রাসী রনির জেল হয়। কিছু দিন পর জেল থেকে জামিন পেয়ে এলাকায় আবার সন্ত্রাসী কার্যক্রম শুরু করে এবং সোনাইমুড়ি থানার কতিপয় দুর্নীতিবাজ এস.আই ও কন্সটেবল এর ছত্রছায়ায় এলাকায় নানারকম মাদককারবারী, ইয়াবা ব্যবসা, চাঁদাবাজী, অপহরণ, খুন, গুম ও প্রকাশ্যে প্রাণনাশের হুুমকিসহ নানারকম অপকম করে আসছে।
বতমানে এলাকায় কেউ ঘর নির্মান কিংবা জায়গা জমি কেনা বেচা করতে হলে সন্ত্রাসী রনিকে চাঁদা দিতে হয় এবং গড়ে তুলেছে এলাকায় মাদক ও ইয়াবাসহ নানা ধরণের অবৈধ ফেনসিডিল ও বিদেশি মদের ব্যবসা।
এই সন্ত্রাসী রনির নেতৃত্বে রয়েছে একই বাড়ির জাহাঙ্গীর আলম ও সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা হত্যার মূল আসামী মাহবুব পাটওয়ারী। এছাড়া একই ইউনিয়নের বাসিন্দা বট্টগ্রামের আরেক শীর্ষ সন্ত্রাসী মহিন। মাদক কারবারী রনি এবার আইছাপাড়া গ্রামের ৯নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকাবাসী জানায় সন্ত্রাসী রনি ও তার দলবল প্রকাশ্যে অস্ত্র দেখিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন , চাঁদাবাজি, ছিনতাই, রাহাজানি, মাদক ব্যবসাসহ নানারকম অপরাধকমে জড়িত। এবারের নির্বাচনে যদি রনিকে প্রাথী করা হয় তাহলে অপরাধের প্রবণতা ও খুন খারাবির তীব্রতা আরো বাড়বে বলে আংশকা একাবাসীর।
সন্ত্রাসী রনির মূল নেতৃত্বে রয়েছে জেলা আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক মাসুদুর রহমান শিপন। তার মামা জাহাঙ্গীর আলম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অফিসবয়। শিপন সোনাইমুড়ি ও চাটখিল উপজেলায় গড়ে তুলেছে বিশাল সন্ত্রাসী বাহিনী। তার নেতৃত্বে শীর্ষ সন্ত্রাসী ও মাদক কারবারী রনি এবার আইছাপাড়া গ্রামের ৯নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী। (চলবে——)

Leave a Reply

Your email address will not be published.